দ্রুত গুগল এডসেন্স এপ্রুভাল পাওয়ার উপায় ২০২২ | Google AdSense Approval Trick 2022

দ্রুত গুগল এডসেন্স এপ্রুভাল পাওয়ার উপায় ২০২২ | Google AdSense Approval Trick 2022অনেক বন্ধুবান্ধবের কাছে শুনেছেন ব্লগে লেখালেখি করে এডসেন্সের মাধ্যমে আয় করা যায় । এখন যেহেতু আপনি সবেমাত্র লেখালেখি শুরু করেছেন, সেহেতু আপনার মাথায় চিন্তা সবসময় জন্যই ঘুরপাক খাচ্ছে যে, কতগুলো আর্টিকেল ব্লগে লেখা হলে এডসেন্সে অ্যাপ্রুভাল পাওয়া যায়, কত ভিজিটর আসলে এডসেন্সে অ্যাপ্রুভাল পেতে সুবিধা হয় ইত্যাদি ।

আরও পড়ুন: ব্লগ কি এবং কেন? | ব্লগের প্রয়োজনীয়তা | বিস্তারিত

দ্রুত গুগল এডসেন্স এপ্রুভাল পাওয়ার উপায় ২০২২

হয়তোবা আপনি এডসেন্সের জন্য আবেদনও করেছেন, কিন্তু অ্যাডসেন্স বারবার সেটি প্রত্যাখ্যান করছে বা রিজেক্ট করে দিচ্ছে । আপনি হয়তো মন খারাপ করে বসে আছেন । ফেসবুকের বিভিন্ন গ্রুপ, কুয়োরাসহ বিভিন্ন স্থানে প্রশ্ন করছেন “কিভাবে সহজেই এডসেন্স পাওয়া যায়” ।

আরও পড়ুন: নফল নামাজ পড়ার নিয়ম । নফল কাকে বলে । নফল নামাজ নিয়ে বিস্তারিত

দ্রুত গুগল এডসেন্স এপ্রুভাল পাওয়ার উপায় ২০২২

আরও পড়ুন: দোয়া কুনুত এর ফজিলত | দোয়া কুনুত এর তাফসির

আজকের “বাংলা আইটি ব্লগ ৩৬০”-এর ব্লগ পোস্টে আমি আপনাদের ছোট্ট একটি ধারণা দেওয়ার চেষ্টা করব “দ্রুত গুগল এডসেন্স এপ্রুভাল পাওয়ার উপায় ২০২২” বা এডসেন্স পেতে গেলে কি কি করতে হয় । এই তথ্যগুলো হয়তো আপনাকে আপনার লক্ষ্যে পৌঁছতে সাহায্য করবে ।

টেমপ্লেট নির্ধারণ

টেমপ্লেট হল একটা দোকানের শোকেস এর মত । আপনি আপনার দোকান থেকে যত সুন্দর করে সাজাতে পারবেন, ততই আপনার কাস্টমার বৃদ্ধি পাবে । ঠিক সেই রূপ, একটা ব্লগের লুকটা যদি ভালো হয় তাহলে আপনার গুগলের কাছ থেকে এডসেন্স পেতে অসুবিধা হবে । 

আপনি চেষ্টা করবেন একটি এসইও ভিত্তিক টেমপ্লেট ব্যবহার করার । টেমপ্লেটে শুধু ব্যবহার করলেই হবেনা সুন্দর করে মেনুবার, সাইডবার, About-us, Contact-us, Privacy & Policy দিয়ে সাজাতে হবে ।

পেজ সেটিং

আপনি হয়তো আপনার ব্লগে সুন্দর করে লিখেছেন এবং সুন্দর একটি টেমপ্লেট দিয়েও আপনার ব্লগ টি সাজিয়েছেন । কিন্তু আপনার ব্লগে কিছু পেজ যেমন- About-us, Contact-us, Privacy & Policy এগুলো দেননি । গুগলের কিছু নির্দিষ্ট নিয়ম কানুন আছে । উল্লেখিত পেজগুলো যদি আপনি না দেন তাহলে গুগল কিভাবে বুঝবে যে এটা আপনার সাইট অথবা এই সাইটের আপনি মালিক?

গুগলকে বোঝাতে হবে এই সকল পেজের মাধ্যমে যে এই সাইটের মালিক আপনিই । এজন্য আপনাকে এই পেইজগুলো আপনার ব্লগে অবশ্যই রাখতে হবে । এজন্য আপনার ব্লগে এডসেন্স পেতে অনেক সুবিধা হবে । এই পেইজগুলো কি গুরুত্ব বহন করে তা নিম্নে বর্ণনা করা হলোঃ

About-Us

আপনি আপনার ওয়েবসাইট বা ব্লগ সাইট কোন নিশ এর উপর অর্থাৎ বিষয়ের উপর তৈরি করেছেন, কি উদ্দেশ্যে তৈরি করেছেন সে সম্পর্কিত একটা পেজ আপনাকে অবশ্যই আপনার ব্লগে রাখতে হবে । যদি আপনার উদ্দেশ্য আপনি নিজেই যদি না জানেন তাহলে গুগলও আপনাকে অ্যাডসেন্স অ্যাপ্রভাল দিবেনা । সেজন্য আপনার ব্লগে অবশ্যই আপনি একটি About-Us পেজ অবশ্যই রাখবেন ।

Contact-Us

আপনার ব্লগ টি হয়তোবা খুব জনপ্রিয় । কিন্তু লোকজন আপনার সাথে যোগাযোগ করতে চায় । বিভিন্ন কারণেই চাইতে পারে । এমনকি গুগোলও দেখতে চায় আসলে এই ব্লগ সাইটের মালিক কে? এখন আপনি যদি আপনার ব্লগ সাইটে একটি কন্টাক্ট পেজ রাখেন তাহলে যে কেউ আপনার সাথে যোগাযোগ করতে পারবে । আপনি একটি জিনিস লক্ষ্য করবেন যে, যতগুলো ব্লগ সাইট অথবা ওয়েবসাইট আছে সেখানে সবগুলোতেই Contact-us পেজটি আছে । তাহলে বুঝতে হবে এই পেজটির গুরুত্ব অপরিসীম ।

Privacy & Policy

আপনার ওয়েবসাইট বা ব্লগ সাইটের নিরাপত্তা প্রদানের দায়িত্ব আপনার নিজের । অর্থাৎ আপনি নিজেই ব্লগ সাইট এর স্বত্বাধিকারী । একজন পাঠক আপনার ব্লগ সাইটে এসে যদি নিরাপত্তা না পায় তাহলে সে আপনার ব্লগে কেন আসবে? গুগোল দেখতে চায় যে আপনার সাইটটি কতটা নিরাপদ ।

নিরাপত্তার কথা মাথায় রেখেই আপনাকে একটি প্রাইভেসি পলিসি পেজ রাখতে হবে আপনার ব্লগে যাতে গুগোল ও ভিজিটররা মনে করে যে আপনার সাইটটি তার জন্য নিরাপদ । আপনি যদি প্রাইভেসি পলিসি বুঝতে না পারেন তাহলে গুগলে সার্চ দেন । আইডিয়া নিন । তারপর Privacy & Policy পেজ জেনারেট করুন । 

ব্লগ সাইট বা ওয়েবসাইটে আরো বেশকিছু পেজ থাকে কিন্তু উপরোল্লিখিত এই তিনটি পেইজ প্রধান । যেগুলো আপনাকে এডসেন্স পেতে সাহায্য করবে ।

টপ লেভেল ডোমেইন

ডোমেইন সাধারনত দুই ধরনের হয়ে থাকে । ১ম, টপ লেভেল ডোমেইন যেমন- .com, .net, .info, .org, .xyz । আর অন্যটি হল সাবডোমেইন যেমন- yourblogname.blogspot.com । আপনি এই দুই ধরনের ডোমেইন দিয়েই এডসেন্সে এপ্রুভাল হয়তো নিতে পারবেন কিন্তু ভিজিটররা এসে দেখবে আপনি আর একজনের ঘাড়ের উপর বসে ইনকাম করছেন তাহলে সেই ভিজিটর দ্বিতীয়বার আপনার ব্লগ সাইট বা ওয়েবসাইটে আসতে দ্বিধাবোধ করবে । এজন্য একটি টপ-লেভেল ডোমেইন থাকা খুব ভালো । এতে অ্যাডসেন্স পেতেও অনেক সুবিধা হয় ।

আর্টিকেলের ধরন

ব্লগে কিংবা কোন প্রকার ওয়েবসাইটে লেখালেখি করার আগেই আপনাকে এটি মনে রাখতে হবে যে, আপনি যে কনটেন্ট অথবা আর্টিকেলগুলো লিখছেন সেগুলো যেন সম্পূর্ণ কপিরাইট মুক্ত হয় । গুগল সবসময়ের জন্য কপিরাইটমুক্ত নির্ভেজাল আর্টিকেল গুলো পছন্দ করে থাকে । আপনাকে যে গতানুগতিক সবার মতো লিখতে হবে এমনটি নয় ।

আপনি আপনার মত করে লিখুন । তবে হ্যাঁ আপনি আপনার কম্পিউটারে আর দশজনের লেখা রিসার্চ করুন । আপনি যে বিষয় নিয়ে লিখতে চাচ্ছেন সে বিষয়ে রিসার্চ করুন । তাহলে দেখবেন আপনি সুন্দর একটি আর্টিকেল, কপিরাইটমুক্ত আর্টিকেল লিখতে পারছেন । এডসেন্স পাওয়ার জন্য কপিরাইটমুক্ত আর্টিকেল ১০০% দরকার ।

আর্টিকেলের আকার

আপনার ব্লগে আপনি এডসেন্স পেতে চান । কিন্তু আপনি যে আর্টিকেলগুলো লিখেছেন সেগুলো খুবই ছোট ছোট । আপনি যদি পরীক্ষায় ভালো করতে চান তাহলে আপনি যে প্রশ্নের উত্তর আপনার জানা আছে সেটি ব্রট ভাবে লিখবেন এতে আপনি পরীক্ষায় ভালো নাম্বার পাবেন । 

যদি সর্ট ভাবে লেখেন তাহলে পরীক্ষায় নাম্বারও কম পাবেন । সেইরূপ আপনি যখন আপনার ব্লগের আর্টিকেল গুলো ২০০ অথবা ৩০০ শব্দের ভিতর রাখবেন তখন গুগল আপনাকে এডসেন্স দিতে দ্বিধাবোধ করবে । আসলে আপনার মধ্যে কোন মেধা আছে কিনা সেটা চিন্তা-ভাবনা করবে ।

আপনাকে অন্তত সর্বনিম্ন ৫০০+ শব্দের আর্টিকেল লিখতে হবে । আর সর্বোচ্চ ১০০০ থেকে বেশি শব্দের হলে আরো ভালো হয় । এতে আপনি যে বিষয়ে লিখছেন পরিপূর্ণভাবে আপনার ভিজিটরদের কাছে তুলে ধরলে ভিজিটররা পরবর্তীতে আপনার সাইটে আসবে । এক কথায় আপনার আর্টিকেল হতে হবে তথ্যভিত্তিক ।

কত ভিজিটর দরকার

আপনাকে মনে রাখতে হবে একটি ব্লগ অথবা ওয়েবসাইটের প্রাণ হলো ভিজিটর । আপনার ব্লগ বা ওয়েবসাইটে যদি ভিজিটর না থাকে তাহলে গুগল আপনাকে এডসেন্স দিবে কেন?

আপনি যদি ভালোভাবে আপনার ব্লগটিকে সাজাতে পারেন, আর্টিকেলগুলো লিখতে পারেন তা হলে ভিজিটরের অভাব হবে না। তাই ভিজিটরের কথা মাথা থেকে বাদ দিন । আপনার ব্লগ সাইটে আপনি মনোনিবেশ করুন । সত্য কথা বলতে একটি ব্লগ সাইটে অ্যাডসেন্স পেতে গেলে কত ভিজিটর লাগে, সে কথা গুগল কোথাও উল্লেখ করে নাই ।

আর্টিকেল সংখ্যা

আপনি যখন আপনার ব্লগ সাইটে ভালো মানের আর্টিকেল পাবলিশ করবেন তখন গুগল এবং ভিজিটররা ভাববে যে এটা একটা প্রফেশনাল ব্লগারের ব্লগ সাইট । ধরুন আপনি দুই থেকে তিনটি আর্টিকেল পাবলিশ করে রেখেছেন, এরপর কি লিখবেন বুঝতে পারছেন না । তাহলে আপনি কি অ্যাডসেন্স পাওয়ার যোগ্য?

সোজা কথা, এডসেন্স পেতে গেলে আপনার ব্লগ সাইটে ১০০০ শব্দের সর্বনিম্ন ২০ টি আর্টিকেল থাকতে হবে । আর যদি ৫০০ শব্দের আর্টিকেল হয় তাহলে অন্তত ৩৫ থেকে ৪০ টি আর্টিকেল থাকতে হবে । তাহলে বোঝা যাবে যে আপনি একজন প্রফেশনাল ব্লগার । এতে আপনার এডসেন্স পেতে অসুবিধা হবে ।

ব্লগ সাইট এর বয়স

আমাদের মাঝে অনেকেই আছেন যারা ব্লগ সাইট ওপেন করার সাথে সাথেই এডসেন্স পেতে চায় । এইতো সেদিন কোয়ারায় একটি প্রশ্ন দেখলাম, যে তিনি ব্লগ খুলেছেন মাত্র ৩ দিন এবং এডসেন্স এর জন্য আবেদনও করেছেন, এখন তিনি প্রশ্ন করছেন অ্যাডসেন্স পেতে তাকে কত দিন ওয়েট করতে হবে । আপনি একবার ভাবেন তো আসলে ওই লোক এডসেন্স পাওয়ার যোগ্য কিনা?

আপনি যদি আজকে গাছ লাগিয়ে কালকেই ফল খেতে চান তাহলে কি আপনি পারবেন? অবশ্যই না । সে ক্ষেত্রে আপনাকে আপনার ব্লগটিকে সুন্দর করে সাজাতে এক থেকে দেড় মাস চলে যাওয়ার কথা । অন্তত দুই মাসের মধ্যে বা আগে আপনার ব্লগের জন্য এডসেন্সের আবেদন করা ঠিক না । এতে গুগল আপনাকে রিজেক্ট করে দিতে পারে । এতে আপনার মন ভেঙে যেতে পারে, তাই নিয়ম মেনে কাজ করুন ।

একাধিক এডসেন্স একাউন্ট

ধরুন আপনি একটি জিমেইল এর অধীনে আপনার ব্লগের জন্য তিন-চারবার এডসেন্স এর জন্য আবেদন করেছেন । কিন্তু প্রতিবারই গুগল আপনাকে রিজেক্ট করে দিচ্ছে । কোন কারণে দিচ্ছে এটা সমাধান না করে আপনি অন্য একটা জিমেইল দিয়ে আবার অ্যাডসেন্স অ্যাকাউন্ট খুলে আবেদন করলেন ।

আমি কেন যারা ব্লগ নিয়ে উঠাবসা করেন তারা সবাই বলবে আপনি কখনোই এডসেন্স পাবেন না । হ্যাঁ পাবেন, যদি আপনি আগের অ্যাডসেন্স অ্যাকাউন্টটা ক্লোজ করে দিয়ে তারপর আর একটা জিমেইল এর অধীনে এডসেন্স একাউন্ট খুলে আবেদন করতে পারবেন । গুগল জানিয়ে দিয়েছে একটা মানুষের জন্য একটা এডসেন্স, একাধিক নয় । এজন্য একটু খেয়াল রাখতে হবে ।

বেসিক এসইও

এডসেন্স পেতে গেলে আপনার ব্লগের ২০ পোষ্টের অর্থাৎ আর্টিকেল এর মধ্যে অন্তত ৫-৬টি আর্টিকেল গুগলে ইনডেক্স হতে হবে । এজন্য আপনাকে গুগলের সার্চ কনসল ব্যাবহার করতে হবে । তাই চেষ্টা করবেন ইউনিক কনটেন্ট লিখে সেগুলো গুগলে ইনডেক্স করাতে । তাহলে আপনার এডসেন্স পেতে অনেক সুবিধা হবে ।

বন্ধুরা আশা করি আজকের "দ্রুত গুগল এডসেন্স এপ্রুভাল পাওয়ার উপায় ২০২২ | Google AdSense Approval Trick 2022" আলোচনা আপনাদের ভালো লেগেছে । এই রকম আনকমন এবং আপডেট সমস্ত লেখা পেতে চোখ রাখুন “বাংলা আইটি ব্লগ ৩৬০” ব্লগে । এছাড়াও যদি আরও কোনও বিষয়ে লেখা পড়তে চান তাহলে কমেন্ট বক্সে কমেন্ট করুন । আজ এ পর্যন্তই । আল্লাহ হাফেজ ।।


আরও পড়তে পারেন: বিকাশ একাউন্ট বন্ধ করার নিয়ম ২০২২ | How to Close a bKash Account 2022

Next Post Previous Post
No Comment
Add Comment
comment url