পোস্ট অফিসে টাকা রাখার নিয়ম ২০২২ | পোস্ট অফিসে টাকা রাখার নিয়ম

পোস্ট অফিসে টাকা রাখার নিয়ম ২০২২ | পোস্ট অফিসে টাকা রাখার নিয়মসঞ্চয়পত্রের পর ডাকঘর সঞ্চয় ব্যাংকের প্রতি মানুষের আগ্রহ সবথেকে বেশি । তার অন্যতম প্রধান কারণ হচ্ছে ডাকঘর সঞ্চয় ব্যাংকের মুনাফার হার অন্য যেকোনো ব্যাংকের এফডিআর বা ডিপোজিট এর তুলনায় অনেক বেশি । দ্বিতীয় প্রধান কারণ হচ্ছে ডাকঘর ব্যাংকে সঞ্চয় শতভাগ নিরাপদ ।

আরও পড়ুন: এবি ব্যাংক স্টুডেন্ট একাউন্ট | AB Bank Student Account

তাই ডাকঘর সঞ্চয় ব্যাংকে টাকা জমা থেকে শুরু করে টাকা উত্তোলন করা পর্যন্ত সকল বিষয়গুলো জেনে নেওয়া জরুরী । ডাকঘর সঞ্চয় ব্যাংকের বিষয়ে সকল বিস্তারিত তথ্য আপনি কোথাও নাও পেতে পারেন ।

আরও পড়ুন: উপায় মোবাইল ব্যাংকিং ৫০ টাকা বোনাস | উপায় একাউন্ট বোনাস

পোস্ট অফিসে টাকা রাখার নিয়ম ২০২২

ডাকঘর সঞ্চয় ব্যাংকের প্রতিটি বিষয়ে আজ আপনাদের সাথে শেয়ার করব । এতে করে আপনারা ডাকঘর সঞ্চয় ব্যাংক সম্পর্কে সকল সঠিক তথ্য জানতে পারবেন ।

“বাংলা আইটি ব্লগ ৩৬০”-এ আপনাদের স্বাগতম জানাই । আজকের ব্লগপোস্টে “পোস্ট অফিসে টাকা রাখার নিয়ম” সম্পর্কে বিস্তারিত আলোচনা করার চেষ্টা করব । যা আপনাদের অনেক উপকারে আসবে । আশাকরি পুরো ব্লগ আর্টিকেলটি পড়বেন । তাহলে চলুন শুরু করা যাক ----

ডাকঘর সঞ্চয় ব্যাংক কি?

টাকা জমানোর ক্ষেত্রে আমাদের এই উপমহাদেশ অঞ্চলে সবথেকে পুরাতন মাধ্যম হচ্ছে ডাকঘর । ডাকঘর সঞ্চয় প্রথা চালু হয় ব্রিটিশ শাসনামলে অর্থাৎ ১৮৭২ সালে ।

বাংলাদেশের স্বাধীনতার পর সাধারণ মানুষের সঞ্চয় প্রবণতা বৃদ্ধির স্বার্থে বাংলাদেশ এই কর্মসূচি চালু করা হয় ১৯৭৪ সালে ।

উল্লেখ থাকে যে ২০১৮ - ২০১৯ অর্থবছরের ডাকঘর সঞ্চয় ব্যাংকে সঞ্চয় জমা হয়েছিল ১৬ হাজার ৮৮২ কোটি টাকা ।

ডাকঘর সঞ্চয় ব্যাংকের হিসাব এর ধরন

ডাকঘর সঞ্চয় ব্যাংকে সাধারণত দুই ধরনের হিসাব খোলা যায় -----

১। সাধারণ হিসাব

২। মেয়াদী হিসাব

ডাকঘর সঞ্চয় ব্যাংক সাধারণ হিসাব

ডাকঘর সঞ্চয় ব্যাংকের সাধারণ হিসাব হচ্ছে, আমরা সাধারণ ব্যাংকে যেভাবে সেভিংস একাউন্ট করি বা খুলে থাকি এবং লেনদেন করি ডাকঘর সঞ্চয় ব্যাংক সাধারণ হিসাবও তদ্রুপ ।

ডাকঘর সঞ্চয় ব্যাংক মেয়াদী হিসাব

ডাকঘর সঞ্চয় ব্যাংক মেয়াদী হিসাব হচ্ছে আমরা যে কোন ব্যাংকে যেমন এফডিআর করে থাকি, ডাকঘর সঞ্চয় ব্যাংক মেয়াদী হিসাবও ঠিক তদ্রুপ ।

ডাকঘর সঞ্চয় ব্যাংকে কারা টাকা রাখতে পারবেন?

ডাকঘর সঞ্চয় ব্যাংক সাধারণ হিসাব এবং মেয়াদী হিসাব উভয় হিসাবে সাধারণত বাংলাদেশের সকল শ্রেণীর এবং পেশার নাগরিক এখানে একাউন্ট খুলে টাকা রাখতে পারবেন । উল্লেখ্য একজন নাবালক এর পক্ষে ও এই হিসাব খোলা সম্ভব অর্থাৎ যাদের বয়স ১৮ বছর হয়নি তারাও চাইলে এই হিসাব খুলতে পারবে ।

ডাকঘর সঞ্চয় ব্যাংকের গুরুত্বপূর্ণ তথ্য

১। মেয়াদী হিসাবে টাকা রাখার পর ছয় মাসের আগে টাকা উত্তোলন করলে কোন মুনাফা দেওয়া হবে না ।

২। আপনার হিসাবে আপনি নমিনি নিয়োগ, পরিবর্তন এবং বাতিলও করতে পারবেন ।

৩। স্বয়ংক্রিয় পুনঃবিনিয়োগ সুবিধা পাওয়া যায় (মেয়াদী হিসাবের মেয়াদান্তে টাকা উত্তোলন না করলে স্বয়ংক্রিয় পুনরায় বিনিয়োগ হয়ে যাবে) ।

৪। ১,৯৯,৯৯৯ টাকা পর্যন্ত বিনিয়োগ করলে টিন সার্টিফিকেট লাগবে না এর উপরে হলে টিন সার্টিফিকেট লাগবে ।

৫। ১,৯৯,৯৯৯ টাকা পর্যন্ত নগদ টাকা দিয়ে আপনি হিসাব খুলতে পারবেন । টাকার অঙ্ক এর থেকে বেশি হলে ব্যাংক চেকের মাধ্যমে টাকা জমা দিতে হবে ।

ডাকঘর সঞ্চয় ব্যাংক মুনাফার হার

সাধারণ ও মেয়াদী হিসাবে ডাকঘর সঞ্চয় ব্যাংক মুনাফার হার নিম্নে প্রদান করা হলো ----

ডাকঘর সঞ্চয় ব্যাংকের সাধারণ হিসাবের মুনাফার হার ৭.৫০% । সাধারণ হিসাবে টাকা রাখার একমাসের মধ্যে টাকা উত্তোলন করলে কোনো প্রকার মুনাফ প্রদান করা হবে না । এই মুনাফা আপনি এক মাস পর পর পাবেন ।

ডাকঘর সঞ্চয় ব্যাংকের মেয়াদী হিসাবের মুনাফার হার ১১.২৮% । মেয়াদী হিসাবে টাকা রাখার ছয়মাসের মধ্যে টাকা উত্তোলন করলে কোনো প্রকার মুনাফ প্রদান করা হবে না । এই মুনাফা আপনি ছয় মাস পর পর পাবেন ।

পোস্ট অফিসে টাকা রাখার নিয়ম ২০২২

ডাকঘর সঞ্চয় ব্যাংকের সাধারণ হিসাব মুনাফা

পোস্ট অফিসে টাকা রাখার নিয়ম


ডাকঘর সঞ্চয় ব্যাংকের মেয়াদী হিসাব মুনাফা (৬মাস)

পোস্ট অফিসে টাকা রাখার নিয়ম


ডাকঘর সঞ্চয় ব্যাংকের মেয়াদী হিসাব মুনাফা (১বছর)

পোস্ট অফিসে টাকা রাখার নিয়ম


একাউন্ট খোলার জন্য ডকুমেন্ট

সাধারণ হিসাব খোলার জন্য বিনিয়োগকারীর ছবি, নমেনির ছবি, উভয়ের ভোটার আইডি এর কপি এবং একটি সচল মোবাইল ফোন নাম্বার ।

মেয়াদী হিসাব খোলার জন্য উপরোক্ত সেইম ডকুমেন্ট এর প্রয়োজন । যদি বিয়োগের পরিমান ১,৯৯,৯৯৯ টাকার বেশি হয় তাহলে আপনার টিন সার্টিফিকেট দরকার পড়বে ।

আপনি যদি ১,৯৯,৯৯৯ টাকার নিচে টাকা জমা দিয়ে একাউন্ট খুলতে চান তাহলে নগদ টাকা দিয়েই মেয়াদি হিসাব খুলতে পারবেন ।

আর যদি বিনিয়োগের পরিমান ১,৯৯,৯৯৯ টাকার উপরে হয় তাহলে আপনাকে ব্যাংক চেক সাথে নিয়ে যেতে হবে অর্থাৎ ব্যাংক চেকের মাধ্যমে জমা দিতে হবে ।

কোথায় সঞ্চয় ব্যাংক হিসাব খুলতে পারবেন?

বাংলাদেশ জাতীয় সঞ্চয় অধিদপ্তর এর যতগুলো শাখা আছে অর্থাৎ প্রত্যেক জেলার শাখা থেকে আপনি এই হিসাব খুলতে পারবেন । অথবা বাংলাদেশের যে কোন জেলার প্রধান ডাকঘর থেকেও আপনি এই হিসাব খুলতে পারবেন ।

বন্ধুরা আশা করি আজকের "পোস্ট অফিসে টাকা রাখার নিয়ম ২০২২ | পোস্ট অফিসে টাকা রাখার নিয়ম" আলোচনা আপনাদের ভালো লেগেছে । এই রকম আনকমন এবং আপডেট সমস্ত লেখা পেতে চোখ রাখুন “বাংলা আইটি ব্লগ ৩৬০” ব্লগে । এছাড়াও যদি আরও কোনও বিষয়ে লেখা পড়তে চান তাহলে কমেন্ট বক্সে কমেন্ট করুন । আজ এ পর্যন্তই । আল্লাহ হাফেজ ।।


আরও পড়ুন: আইএফআইসি ব্যাংক আমার একাউন্ট | IFIC Bank Amar Account

Next Post Previous Post
No Comment
Add Comment
comment url